শীতের শুরুতেই আপনার ঘর রাখুন জাবীণুমুক্ত ও পরিষ্কার

25th November 2019 0 Comments

শীত শীত ওম ওম আমেজ থেকে হঠাৎ শৈত্যপ্রবাহ। শীতের সময়টাই এমন। কখন যে ঝাপিয়ে চলে আসে শীত বুড়ি তার কোনো পহৃর্বাভাস মিলেনা অনেকসময়। শীত থাকবে। শৈত্যপ্রবাহে জবুথবু হয়ে যাবে মানুষ। কিন্তু তাই বলে কী শীতের মতো জবুথবু থাকবে ঘরবাড়ি? তা নয়। বরং শীতের সময়টাতে একটু গুছিয়ে চললে যেমন আপনার ঘরবাড়ির সৌন্দর্য বেড়ে যাবে কয়েকগুণ, তেমনি বাড়িতে থাকা অবস্থায় শীতের হাত থেকেও বেঁচে যাবেন। আজকের লেখাতে আমরা আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি তাই শীতের শুরুতেই আপনার ঘর  জাবীণুমুক্ত ও পরিষ্কার রাখার কৌশল ।

 

চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক শীতের শুরুতেই আপনার ঘর  জাবীণুমুক্ত ও পরিষ্কার রাখার কৌশলঃ

 

(১) আপনার শোয়ার ঘরটি অন্যান্য ঘরের তুলনায় সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বেশিভাগ সময় আপনার এ ঘরেই কাটে। এই শোয়ার ঘরগুলো সবচেয়ে আগে পরিষ্কার রাখা উচিত। তারপর বাকি ঘরগুলো।

 

(২) রান্নাঘর খুব ভালোভাবে পরিষ্কার রাখবেন। এতে খাবারে জীবাণু অ্যাটাক করতে পারবে না। খাবারের বাসন-কোসন ধুয়ে থাকলেও, খাবার আগে সেগুলো আরেকবার পানিতে ধুয়ে নিয়ে ব্যবহার করুন।

 

(৩)  ঘরের পর্দা পরিষ্কার রাখুন। বাইরের ধুলাবালি বারান্দা আর জানালার পর্দায় বেশি জমে থাকে। শীতের সময় দু’সপ্তাহে একবার পর্দা ধুয়ে ফেলবেন। জানালার গ্রিল প্রতিদিন পরিষ্কার করুন। ধুলাবালি ভালোমতো ঝেড়ে রাখবেন। জানালা খুব বেশি প্রয়োজন না হলে খোলা রাখবেন না।

 

(৪) ঘরের মেঝের পাশাপাশি কার্পেট পরিষ্কার করে রোদে শুকাতে দিন।লেপ, কম্বল ব্যবহারের আগে ধুয়ে ২ দিন রোদে রেখে দেবেন। এতে দীর্ঘদিনের জমে থাকা ভ্যাপসা ভাবটা থাকবে না আর হাঁচি কাশি হবে না।

 

(৫) শোপিস শুকনো কাপড় দিয়ে না ঝেড়ে ভেজা কাপড় দিয়ে পরিষ্কার করুন। ঘরের বুক শেলফের বইপত্র শুকনো কাপড় দিয়ে পরিষ্কার করে রাখুন।

 

(৬) ড্রেসিং টেবিল,ওয়্যার-ড্রব,পড়ার টেবিল, আলমারি ইত্যাদি আসবাবপত্র ধুলাবালি থেকে মুক্ত রাখুন।সোফা,চেয়ার,কার্পেট পরিষ্কার করা কষ্টকর হয়ে যায় অনেক সময়। সে জন্য ভ্যাকুয়াম ক্লিনার ব্যবহার করা সহজ হবে।

 

(৭) ফ্যান, লাইট, আয়না, ফটোস্ট্যান্ড এসব কিছু ভালোভাবে শুকনো কাপড় দিয়ে পরিষ্কার করুন।এ সময় ঘরে অনেক ঝুল আর আনাচে কানাচে ধুলা বালি জমে থাকে। এগুলো প্রতি সপ্তাহে একবার করে পরিষ্কার করুন।

 

(৮) টেলিভিশন, কম্পিউটার, আর ফ্রিজ শুকনো কাপড় দিয়ে মুছে নেয়াই ভালো, তবে এ কাজগুলো সাবধানে করতে হবে।ঘরের সাথের বারান্দা ঝাড়ু দিয়ে রাখবেন এবং তার সাথে গাছ থাকলে সেগুলো পানি দেয়ার পর টব সরিয়ে মুছে জায়গামতো সাজিয়ে রাখুন।

 

(৯) শীতের কাপড় সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ আর এটাই যদি পরিষ্কার না থাকে তাহলে রোগজীবাণু খুব সহজেই ছড়িয়ে যাবে। তাই গরম কাপড়, চাদর, জ্যাকেট শীতের সময় ব্যবহারের আগে সেগুলো ভালোভাবে ধুয়ে রোদে শুকিয়ে নেবেন। তারপর পরবেন।

 

যাদের ধুলাবালিতে অ্যালার্জি আছে তারা অবশ্যই গ্লাভস পরে নেবেন এমন নাক ভালোভাবে ঢেকে নেবেন। কাজ শেষে অবশ্যই গোসল করে নেবেন। এভাবে মাসের একেক সপ্তাহে একেক কাজ নিজের সুবিধা মতো ভাগ করে নিয়ে শেষ করলে সহজ হবে।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published.