লালশাক

29th October 2019 0 Comments

লালশাক একটি জনপ্রিয় খাবার। বাংলাদেশের প্রায় সব অঞ্চলেই কমবেশি লালশাক চাষ হয়। লালশাক সুস্বাদু ও পুষ্টিকর। দেশের অনেক জায়গায় এখন বাণিজ্যিক ভিত্তিতে লালশাক চাষ ও বাজারজাত করা হচ্ছে। বেকারত্ব দূর করতে নারী বা পুরুষ নিজের জমিতে অথবা বর্গা নেওয়া জমিতে লালশাক চাষ করে ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

লাল শাকের পুষ্টিগুনঃ

এতে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ভিটামিন-এ, বি ও সি এবং ক্যালসিয়াম বিদ্যমান। এ সবজি কোষ্ঠ্যকাঠিন্য ও ভিটামিন-এ দৃষ্টিহীনতা দূরীকরণে এবং ভিটামিন সি শারীরিক ও মানসিক গঠনে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

জাতঃ

আলতা পেটি ২০, রক্ত লাল, বারি লালশাক ১, ললিতা, রক্তরাঙ্গা, পিংকি কুইন, রক্তজবা ও স্থানীয় জাত।

 

সময়ঃ

সারা বছরই লাল শাক আবাদ করা যায়। তবে ভাদ্র-পৌষ পর্যন্ত বেশী চাষ হয়।

লাল শাক চাষের মাটিঃ

প্রায় সব ধরনের মাটিতেই সারাবছর বারি লাল শাক-১ এর চাষ করা হয়। তবে দো-আঁশ ও বেলে দো-আঁশ মাটি লাল শাক চাষের জন্য উত্তম।

বীজবপনঃ

ছিটিয়ে অথবা লাইনে বীজ বোনা যায়।

বীজের পরিমাণ

এক শতকে                    হেক্টর প্রতি

সারিতে  ১০০ গ্রাম              ১-১.৫ কেজি

ছিটিয়ে   ১৫০ গ্রাম              ২-২.৫ কেজি

বীজবপন পদ্ধতিঃ

জমি ভাল করে চাষ ও মই দিয়ে সমান করার পর ১ ভাগ বীজের সাথে ৯ ভাগ শুকনা ছাই মিশিয়ে হালকা ভাবে ছিটিয়ে লাল শাকের বীজ বুনতে হয়। লাইন করে অথবা সারি করে বুনতে হলে ১৫ থেকে ২০ সেন্টমিটার দূরে দূরে কাঠি দিয়ে ১.৫ থেকে ২.০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত গভীর করে বীজ বুনতে হয়। পরে তা মাটি দিয়ে ঢেকে দিতে হবে।

লাল শাকের চাষে সার প্রয়োগ

প্রতি শতকে গোবর-৫০ কেজি

ইউরিয়া- ৮০০-৯০০ কেজি

টিএসপি- ৪০০-৫০০ গ্রাম

এমপি- ৩০০-৪০০ গ্রাম

গোবর, টিএসপি, এমওপি ও জিপসাম সার পুরোটা এবং ইউরিয়ার অর্ধেক জমি তৈরির চূড়ান্ত পর্যায়ে প্রয়োগ করতে হবে। বাকি অর্ধেক ইউরিয়া দুই কিস্তিতে বীজ বপনের ১০ এবং ১৮ দিন পর প্রয়োগ করতে হবে।

পরিচর্যাঃ

ঘন জায়গা থেকে চারা তুলে পাতলা করে দিতে হবে। ছিটিয়ে বোনা হলে প্রতি বর্গমিটারে ১০০ থেকে ১৪০ টি গাছ রাখতে হবে। সারিতে বোনা হলে প্রতি লাইনে ৫ সেন্টিমিটার দূরে দূরে গাছ রাখতে হয়। ৪-৫ দিন পর পর সেচ দিতে পারলে ভাল। তাছাড়া পরিস্কার করে সময়মত মাটি আলগা করে দিতে হবে।

ফসল সংগ্রহঃ

বীজ বোনার ৩০ থেকে ৪০ দিনের মধ্যে শাক খাওয়ার উপযুক্ত হয়। একসাথে শাক সংগ্রহ না করে ধীরে ধীরে সংগ্রহ করা ভালো।

ফলন ঃ

প্রতি শতকে ৩০-৪০ কেজি, হেক্টর প্রতি ৫-৬ টন।

 

 

অনলাইনে বীজ কোথায় পাওয়া যায়ঃ

দোকানের পাশাপাশি এখন অনলাইনে বীজ কিনতে পারবেন। কিনতে নিচে বীজ লেখা লিঙ্কের উপর ক্লিক করুনঃ

বীজ

 

Leave a Comment

Your email address will not be published.