মাছ রান্নায় কিছু টিপস

17th February 2020 0 Comments

১। মাছ ভাজার আগে পাত্রটি আগে গরম করে নিন। শিকাগোর সামুদ্রিক মাছের রেস্ট্রুরেন্ট জিটি ফিশ এন্ড ওয়েস্টার এর এক্সিকিউটিভ শেফ ও পার্টনার জিউসপি টেন্টুরি বলেন, “চুলায় পাত্র রেখে ৩-৫ মিনিট তাপ দেয়ার পর মাছ দিন”। পাত্রটি চূড়ান্তভাবে গরম হলে মাছ উল্টে দেয়া সহজ হবে।

২। অনেকক্ষণ ধরে জ্বাল দিয়ে রান্না করলে মাছের স্বাভাবিক স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়। মাছের টুকরার সাদা অংশগুলো যখন অস্বচ্ছ হয়ে আসবে কিন্তু মাঝের অংশটুকু কিছুটা স্বচ্ছ থাকবে তখনি চুলা থাকে নামিয়ে নিন।

৩। রান্নার সময় খুব বেশি নাড়াচাড়া করলে মাছ ভেঙ্গে যাবে। তাই যথা সম্ভব কম নাড়াচাড়া করতে হবে।

৪। ফ্রিজে থাকা মাছ রান্না করার বেশ কিছুক্ষণ আগে নামিয়ে ঠান্ডা পানিতে মাছের প্যাকেটটি ভিজিয়ে রাখুন। তাড়াতাড়ির জন্য গরম পানিতে ভেজাবেন না তাহলে ব্যাকটেরিয়া জন্মানোর সুযোগ তৈরি হয়।

৫। মাছ ম্যারিনেট করার সময় খুব অল্প পরিমাণ লবণ দিন। সুস্বাদু করার জন্য লেবু, জলপাই তেল, মৌরি দিন। খুব বেশিক্ষণ ম্যারিনেট করা যাবেনা, তাহলে মাছ বেশি আদ্র হয়ে যাবে।

৬। গলদা চিংড়ি রান্না করার আগে ৪ মিনিট সিদ্ধ করে নিন।

৭। মাছ কেনার সময় মাছের চোখ স্বচ্ছ ও উজ্জ্বল আছে কিনা দেখে নিন। তাজা মাছের শরীরে চাপ দিলে ডেবে যাবেনা। এছাড়াও মাছে আঁশটে গন্ধ হলে বুঝতে হবে যে এটা পচা শুরু হয়েছে।

৮। চিংড়ি রান্নার সময় যদি সি আকারের হয় তখন সেটা সঠিকভাবে রান্না হয়েছে বুঝা যায় আর যদি ও আকৃতির হয়ে যায় তাহলে বুঝতে হবে বেশিক্ষণ ধরে রান্না হয়েছে।  

৯। যদি এক সপ্তাহ বা ১০ দিনের বেশি সময় মাছ সংরক্ষণ করা হয় এমনকি ফ্রিজেও যদি রাখা হয় তাহলে মাছের স্বাদ ও গুণগত মান কমতে থাকে। তাই মাছের পুষ্টি উপকারিতা ও পরিপূর্ণ স্বাদ পাওয়ার জন্য যত দ্রুত সম্ভব রান্না করে ফেলুন।

১০। বেশিরভাগ মানুষই মাছের টুকরা শুধুমাত্র পানি দিয়ে ধুয়েই রানা করে থাকে। কিন্তু মাছের টুকরা গুলোতে হলুদ ও লবণ মিশ্রিত করে তারপর কলের পানি দিয়ে ধুয়ে নিলে ভালো। কারণ  হলুদ ও লবণ অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল এজেন্ট হিসেবে কাজ করে এবং ময়লা দূর করে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.