নললতা ফুল

4th November 2019 0 Comments

নললতা একটি শক্ত লতার উদ্ভিদ। বাংলা নাম নললতা। বাগানের প্রজাতির চেয়ে বনজ প্রজাতির ফুল বেশ বড় এবং সংখ্যায় কম ফোটে। থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ার প্রায় সবখানে এই ফুল দেখা যায়। শহুরে বনেদি বাড়িতে কদাচিৎ এই ফুলটি দেখতে পাওয়া যায়। ফুলগুলো লম্বা জুলন্ত ডাঁটায় থোকায় থোকায় ঝুলে থাকে। দেখতে অনেকটা ঘণ্টার মতো, দলনল সামান্য বাঁকা, হালকা নীল রঙের অসমান পাপড়ির সংখ্যা পাঁচটি। পুংকেশর চারটি, অর্ধসমান, গলদেশের ভেতরের দিক বাঁকানো, পরাগধানী পাঁচ থেকে নয় মিলিমিটার লম্বা ও দীর্ঘায়িত। ফুল ফোটার প্রধান মৌসুম মার্চ থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত। ফল বেশ শক্তপোক্ত ধরনের, তিন থেকে পাঁচ সেন্টিমিটার লম্বা হতে পারে।বংশবৃদ্ধি বীজ ও কাটিংয়ে। বাগানের বেরাগুলোতে এ ফুলের ঝুলন্ত সমারোহ সত্যিই মনোমুগ্ধকর। সাধারণত ৮ থেকে ১০ মিটার পর্যন্ত ওপরে উঠতে পারে। পাতা বেশ কর্কশ, কণ্টকময় এবং শক্ত কাণ্ড। ফুল গন্ধযুক্ত এবং কীটপতঙ্গের মধু যোগানদাতা। এর বনজ প্রজাতির দেখা মিলবে রাঙামাটি সহ পার্বত্য অঞ্চলের বিভিন্ন পাহাড়ের কোলে।

 

 

উপকারিতাঃ

১। নললতা গাছের শিকড়ে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ট্যানিন যা সর্পদংশনে বিষ নামাতে বেশ উপকারী।

২। নললতা গাছের রস খেলে পাকস্থলীর রোগে উপকার পাওয়া যায়।

৩। নললতা পাতার রস খেলে পেটের সমস্যা ভালো হয়।

৪। নললতা পাতার রস খেলে মুখের অরুচি ভাব কেটে মুখে রুচি ফিরে আসে।

৫। কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা দিলে নললতা গাছের শিকড়ের রস খেলে উপকার পাওয়া যায়।

 

 

অনলাইনে বীজ কোথায় পাওয়া যায়ঃ

দোকানের পাশাপাশি এখন অনলাইনে বীজ কিনতে পারবেন। কিনতে নিচে বীজ লেখা লিঙ্কের উপর ক্লিক করুনঃ

বীজ

 

Leave a Comment

Your email address will not be published.