বাংলাদেশের অতি পরিচিত পাখি ঘুঘু। আমাদের দেশে এই পাখি এখন গ্রামাঞ্চলেই দেখা যায়। ঘুঘু পাখি উড়তে পারে বেশ দ্রুত। লোকালয়ের কাছে বসবাস করলেও এরা আড়ালে থাকে। নিজেদের বাসা নিজেরাই তৈরি করতে পারে। ঘুঘু পাখি খুব সুন্দর সুরেলা কণ্ঠে ডাকতে পারে। দেশীয় ঘুঘু খাঁচায় পালন আইনত দণ্ডনিয় অপরাধ। তবে বিদেশি জাতের ঘুঘু পালা যায়। এর মধ্যে অন্যতম গ্রে ডায়মন্ড ডাভ বা ধূসরবর্ণের ঘুঘু

এরা প্রায় ৩০ থেকে ৪২ সেঃমিঃ লম্বা হয়। ঘুঘু পাখির লেজ বেশ লম্বা। কোনো কোনোটির ডানায় ও লেজে কালো রং ও স্পষ্ট ২টি হলুদ ডোড়া দাগ রয়েছে। আবার কোনো কোনোটির লেজের নিচের রং হয় দারুচিনির মতো। ঘুঘুর দেহ ফ্যাকাসে ধূসর, বাদামি ও তামাটে রংয়ের হয়। ঘাড়ে বেগুনি প্রলেপ রয়েছে। ঠোঁট বাদামি ও কালো। এদের প্রধান খাদ্য শষ্যদানা। এছাড়াও খাদ্য তালিকায় রয়েছে বিভিন্ন রকম ফল, বীজ ও গাছের কচিকুঁড়ি। পিঁপড়া ও কীট-পতঙ্গও খেয়ে থাকে। এই পাখি ২টি করে ডিম পাড়ে। ডিমের রং সাদা ও কিছুটা ফ্যাকাসে। ডিম লম্বায় ২.৬ সেঃ মিঃ ও প্রস্থে ১.৫ সেঃ মিঃ। পুরুষ ও স্ত্রী দুজন মিলেই ডিমে তা দিয়ে থাকে। ডিম থেকে বাচ্চা ফুটতে সময় লাগে ১৩ থেকে ১৪ দিন। ওজন ২৩ থেকে ৩২ গ্রাম। লম্বায় ১৯৩ থেকে ২১৩ মিলিমিটার। শিশু অবস্থায় এর গায়ের রং ধূসর। পূর্ণ বয়স্ক হলে ডানার রং সাদা হয়। চোখ জুড়ে কমলা রংয়ের বৃত্ত তৈরি হয়। একটি পূর্ণ বয়স্ক ঘুঘু যখন ডিম উৎপাদনে উপযোগী হয় তখন চোখের বৃত্ত ছোট হয়। ধূসর বর্ণের পুরুষ ঘুঘুর চোখের বৃত্তের রং হয় কমলা অথবা লাল। পরিধি ২-৩ মিলিমিটার পর্যন্ত। স্ত্রী ঘুঘুর রং বাদামি ধূসর রংয়ের, চোখের বৃত্ত ১ মিলিমিটার পর্যন্ত পুরু হয়। এই ঘুঘু সাধারণত ১০ থেকে ১৪ বছর পর্যন্ত বাঁচে। অনেক ক্ষেত্রে ২১ বছর পর্যন্তও টিকে থাকে। ৬ মাস বয়স হলেই ডিম পাড়া শুরু করে। কখনও কখনও এর ব্যতিক্রম হয়ে ৮ মাস লেগে যায়। গ্রে ডায়মন্ড ঘুঘুর ডিমের রং সাদা। ২টি মাত্র ডিম দেয়। সব শ্রেণির ঘুঘুর ডিম ফুটে বাচ্চা হতে ১৩ থেকে ১৪ দিন সময় লাগে।

খাবারঃ

ঘুঘুর খাদ্য সাধারণত বীজদানা। পিঁপড়াও এরা খেয়ে থাকে। খাওয়ার জন্য সব সময় পানি দিয়ে রাখতে হয়। ছোট আকারের গম (জিরা গম), চিনা, কাউন ও ছোট বীজদানা একসঙ্গে মিশ্রণ করে খাওয়ানো ভালো। গ্রিট, সাগরের ফেনা খাওয়ানো ডিম ও বাচ্চা উৎপাদনের জন্য বেশ ভালো।

 

অনলাইনে পাখি কোথায় পাওয়া যায়ঃ

দোকানের পাশাপাশি পাখি এখন অনলাইনে অর্ডার করে কিনতে পারবেন। অর্ডার করতে নিচে দেয়া পাখি লেখার উপর ক্লিক করুনঃ

 

পাখি

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *