জয়ন্তী গাছ

1st December 2019 0 Comments

জয়ন্তী গাছ সাধারণত দেখা যায় না। জয়ন্তী গাছের বৈজ্ঞানিক নাম হলো Sesbania sesban. এটি Fabaceac গোত্রের ফুল। সংস্কৃত ভাষায় এর নাম জয়ন্তিকা। গাছ সাধারণত ৩-৪ বছর বাঁচে। মাঝারি আকৃতির গাছটি লম্বায় ১০- ২০ফুট উচ্চতার হয়ে থাকে। এর কাণ্ড বাদামি রঙের হয়। পাতা পক্ষল যৌগিক। প্রায় ২০ জোড়া পত্রক থাকে। সাধারণত হলুদ, গোলাপি ও বাদামী এই ৩ ধরনের ফুল গাছভেদে দেখা যায়। ফুল ২ – ৩ সেন্টিমিটার দৈর্ঘ্যের হয়ে থাকে। ৪ টি পাপড়ির মধ্যে ২ টি উল্টানো বিস্তৃত ও ২ টি একত্রীভূত। পৌষমাসে ফুল ফোটে। ফল চিকন লম্বাটে, কাঁচা অবস্থায় সবুজ। শুকিয়ে গেলে বাদামি বর্ণ। প্রতিটি ফলে ২০-২৫টি বীজ থাকে। এই গাছ প্রাকৃতিক ঔষধ হিসেবে  ব্যবহৃত হয়। তবে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা তাদের দুর্গাপূজায় এই গাছ অবশ্যই ব্যবহার করে থাকেন। এই গাছের ডাল ছাড়া দুর্গাপূজা করা সম্ভবই না। সনাতন ধর্মাবলম্বীরা দুর্গাপূজায় এই গাছের ডাল ব্যবহার করে। দুর্গাপূজায় ষষ্ঠী পূজার সময় নবপত্রিকার একটি অংশ হিসেবে এটি ব্যবহার করা হয়।

 

উপকারিতা :

 

১। জয়ন্তী পাতার রস একটু গরম করে নিয়ে দুধের সাথে মিশিয়ে শিশুকে খাওয়ান। এবং কিছু রস তেলের সাথে মিশিয়ে শিশুর বুকে ও পিঠে আস্তে আস্তে মালিশ করুন দেখবেন শিশুর সর্দি কমে গেছে।

২। শূলের বেদনা হলে ভূষিসহ গমের আটার সাথে জয়ন্তী পাতা বেটে রুটি তৈরি করে সহ্যমত গরম গরম বেদনা স্থানে লাগালে উপকার হয়।

৩। শ্বেতী রোগ হলে জয়ন্তী মূলের ছাল বেটে দুধের সাথে খেলে উপকার পাওয়া যায়। ৪। জয়ন্তীর বীজ ভালো করে বেটে দংশন স্থানে লাগালে উপকার হয়।

৫। নাক বন্ধ, মাথা ভার হলে জয়ন্তী পাতার রস সকাল বিকেল খেলে উপকার পাওয়া যায়।

৬। বসন্ত রোগ হলে জয়ন্তীর বীজ বেঁটে ঘি মিশিয়ে বাসি পানি দিয়ে খেলে বসন্ত রোগ ভালো হয়।

 

 

 

অনলাইনে গাছপালা কোথায় পাওয়া যায়ঃ

 

নার্সারির পাসাপাসি গাছপালা কিনতে পারবেন এখন অনলাইনে ।গাছপালা কিনতে ভিজিট করুন নিচে দেয়া নার্সারী লেখার উপর এবং অর্ডার করতে পারেন দেশের যেকোন প্রান্ত থেকেঃ

 

নার্সারি

 

Leave a Comment

Your email address will not be published.