কাকমাচি

18th March 2020 0 Comments

সোলানাম গণের একটি গুল্ম।
বৈজ্ঞানিক নাম — Solanum nigrum
পরিবার — Solanaceae

এদের সাধারণ নামসমূহ হচ্ছে (European black nightshade স্থানিকভাবে শুধু “black nightshade”, duscle, garden nightshade, “garden huckleberry”, hound’s berry, petty morel, wonder berry, small-fruited black nightshade বা popolo)।

এটি ইউরেশিয়ার আদি নিবাসী এবং আমেরিকা অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকায় , বাংলাদেশ, ভারত সহ সব দেশে ই পাওয়া যায়। কাকমাচির পাতা পাঁচ মিশালি শাকের সাথে খাওয়া যায়। এদের ফলগুলিও খেতে সুস্বাদু । পাতা ও মুল নানান ঔষধি ক্ষেত্রে ব্যবহার হয়।

রোপনের সময় ও পদ্ধতিঃ মাটিতে পড়ে থাকা বীজ থেকে গীষ্ম ও বর্ষায় প্রচুর পরিমানে জন্মে থাকে। বীজ ছিটিয়েও চাষ করা যায়। এপ্রিল-মে মাসে বীজ বুনতে হয়। বোনার ২০-৩০ দিন পর চারা স্থানান্তর করা যায়।

রাসায়নিক উপাদানঃ পাতায় প্রচুর পরিমাণ রাইবোফ্ল্যাভিন, নিকোটিনিক এসিড, সাইট্রিক এসিড, ভিটামিন সি, বিটা-কেরোটিন, প্রোটিন এবং বিভিন্ন স্টেরয়ডীয় গ্লাইকোসাইড বিদ্যমান।

ব্যবহার্য অংশঃ ফল, পাতা, ক্ষেত্র বিশেষে সমগ্র উদ্ভিদ।

গুনাগুনঃ যকৃত প্রদাহ, পাক্সথলীর প্রদাহ ও শোথ রোগে বিশেষ ফলপ্রদ। উষ্ণতা নিবারক, মূত্র কারক, প্রদাহ নাশক, অর্শ, জ্বর ও বমন বিবারক এবং কণ্ঠস্বর পরিষ্কারক।

বিশেষ কার্যকারিতাঃ যকৃত প্রদাহ, পাক্সথলীর প্রদাহ ও শোথ রোগে বিশেষ ফলপ্রদ।

রোগ অনুযায়ী ব্যবহার পদ্ধতিঃ

রোগেরনামঃ যকৃত প্রদাহ, পাক্সথলীর প্রদাহ ও জিহবার প্রদাহে
ব্যবহার্য অংশঃ গোটা গাছের
মাত্রাঃ ৫০-৬০ মিলি
ব্যবহার পদ্ধতিঃ রস জ্বাল দিয়ে সকাল ও সন্ধ্যায় খালি পেটে সেব্য।

রোগেরনামঃ জন্ডিসে বা পাণ্ডু রোগে
ব্যবহার্য অংশঃ পাতার রস
মাত্রাঃ ৬০-৭০ মিলি
ব্যবহার পদ্ধতিঃ প্রত্যহ ২ বার সেব্য।

রোগেরনামঃ শোথে
ব্যবহার্য অংশঃ পাতার রস বা গোটা উদ্ভিদের রস
মাত্রাঃ ৫০-৬০ মিলি
ব্যবহার পদ্ধতিঃ রস গরম করে সকাল-বিকাল সেব্য।

সতর্কতাঃ অধিক সেবন মূত্রথলীর রোগে ক্ষতিকর।

Leave a Comment

Your email address will not be published.