ওয়েস্টার মাশরুম চাষ প্রণালি

3rd December 2019 0 Comments

ভুমিকাঃ ওয়েস্টার মাশরুম মূলত Agaricales বর্গের Basidiomycetes শ্রেণির Tricholomataceae পরিবারভুক্ত এবং Pleurotus গণের অন্তর্ভুক্ত। গ্রীক শব্দ Pleuro অর্থ পার্শ্বীয়ভাবে উৎপন্ন হয়া কাণ্ড বা শাখা (Stem/Stalk)। এ মাশরুমের ফ্রুটিং বডি ঝিনুক বা পাখার মত আকৃতি বিশিষ্ট এবং প্রজাতি ভেদে সাদা, ক্রীম, ধূসর, হলুদ, গোলাপি অথবা হালকা বাদামী বর্ণের হয়ে থাকে। ঝরহমবত এর মতে সারা বিশ্বে ওয়েস্টার মাশরুমের ৩৮ টি প্রজাতির চাষ হয়। ওয়েস্টার মাশরুমের চাষ সর্ব প্রথম শুরু হয় ইউরোপে, ১৯৫৮ সালে Block el al প্রথম ল্যাবরেটরিতে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে কাঠের গুড়ায় Pleurotus ostrearus মাশরুম চাষ করেন। বাংলাদেশে ৮০ দসজকে জাপান সরকারের সহায়তায় সোবহানবাগস্থ হরটিকালচার সেন্টারে (বরতমান জাতীয় মাশ্রুম উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ কেন্দ্র) ওয়েস্টার মাশরুমের চাষ শুরু হয়। বর্তমানে প্রায় ২৫ টি প্রজাতির ওয়েস্টার মাশরুম (Species) আমাদের দেশে চাষ করা হচ্ছে।

 

ওয়েস্টার মাশরুমের বৈশিষ্ট্যঃ

  • ওয়েস্টার মাশরুম Lignocellulolytic ছত্রাক অর্থাৎ এটি বিভিন্ন ধরনের কৃষিজ ও বনজ বর্জ্য যা লিগনিন, সেলুলোজ ও হেমিসেলুলোজ, সমৃদ্ধ উপাদানকে ভেঙ্গে খাদ্য গ্রহন করে বিধায় কাঠেরগুড়া, ধানের খড়, গমের খড়, আখের ছোবা, কাগজ, চায়ের পাতি, সুপারির ছালসহ বহুবিধ উপকরণ দিয়ে ওয়েস্টার মাশরুম চাষ করা যায়।
  • ওয়েস্টার মাশরুম গ্রীষ্ম প্রধান ও নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলে প্রচুর পরিমাণে উৎপাদনকে করা হয়।
  • ওয়েস্টার মাশরুমের উৎপাদন প্রযুক্তি সহজ।
  • ওয়েস্টার মাশরুমের তাপমাত্রা, আদ্রতা ও কার্বন-ডাই অক্সাইডের সহনশীলতার সীমা বেশী। অর্থাৎ শীত গ্রীষ্ম ঋতু ভেদে ২০-৩০সেঃ তাপমাত্রা ৮০-৯০% আদ্রতা ও ৪০০-৮০০ পিপিএম কার্বন-ডাই-অক্সাইডের ঘনত্ত্বে চাষ করা যায়।
  • ওয়েস্টার মাশরুম শুকিয়ে সংরক্ষণ করা যায় বিধায় এর বাজারজাতকরণ সহজ।
  • ওয়েস্টার মাশরুমের উৎপাদন ক্ষমতা অনেক বেশি, ১ কেজি খড়ের প্রায় ১ কেজি মাশরুম পাওয়া সম্ভব।

 

অনলাইনে মাশরুম কোথায় পাওয়া যায়ঃ

দেশের খুব কম যায়গায় এই মাশরুম পাওয়া যাআয় তবে অনলাইনে অর্ডার করলে আপনি মাশরুম পেয়ে যাবেন আপনার বাসায় । অর্ডার করতে নিচে দেয়া মাশরুম লেখা লিঙ্কে ক্লিক করুনঃ

 

মাশরুম

 

Leave a Comment

Your email address will not be published.