‘অড়বড়ই’ বা ‘অরবড়ই’ একটি ছোট অপ্রচলিত টক ফল। এর ইংরেজি নাম ‘Otaheite gooseberry’, ‘Malay gooseberry’, ‘Tahitian gooseberry’, ‘country gooseberry’, ‘star gooseberry’, ‘West India gooseberry’ ইত্যাদি। অরবরই গাছের বৈজ্ঞানিক নাম Phyllanthus acidus, যা Phyllanthaceae’ পরিবারভুক্ত।

বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে এই ফলটিকে নলতা, লেবইর, ফরফরি, নইল, নোয়েল, রোয়াইল, রয়েল, আলবরই, অরবরি ইত্যাদি নামেও ডাকা হয়।

ফলটির ব্যাস ০.৫ থেকে ১ সেমি পর্যন্ত হতে পারে। দেখতে হাল্কা হলুদ রং এর এই ফল এর ত্বক খাঁজ কাটা থাকে। পৃথীবির অনেক স্থানে অরবড়ই গাছ লাগানো হয় সৌন্দর্য-বৃক্ষ হিসেবে। বাংলাদেশে এই ফলকে নইল এবং রয়েল নামেও ডাকা হয়।

 

গুনাগুন:

এ ফল প্রচুর ভিটামিন সি সমৃদ্ধ।এতে প্রচুর পানি ও থাকে ফলে বেশী তৃষ্ণার্ত থাকলে এটা খেলে কিছুটা তৃষ্ণা নিবারিত হবে।

লিভারের অসুখের টনিক বানানো হয় এর বীজ দিয়ে।

 

পুষ্টিগুনঃ-

আর্দ্রতা ৯১.৯ গ্রাম

প্রোটিন ০.১১৫ গ্রাম

ফ্যাট ০.৫২ গ্রাম

ফাইবার ০.৮ গ্রাম

অ্যাশ ০.৫ গ্রাম

ক্যালসিয়াম৫.৪ মিলিগ্রাম

ফসফরাস১৭.৯ মিলিগ্রাম

আয়রন ৩.২৫ মিলিগ্রাম

পিঙ্গল পদার্থ ০.০১৯ মিলিগ্রাম

থায়ামাইন ০.০২৫ মিলিগ্রাম

Niacin1 ০.২৯২ মিলিগ্রাম

অ্যাসকরবিক অ্যাসিডের ৪.৬ মিলিগ্রাম

 

ব্যবহার:

বিট সল্ট দিয়ে খেতে পারেন।ডাল এ দিয়ে খেতে পারেন।তাছাড়া এর আচার খুব ই সুস্বাদু। অরবরই গাছ গুল্ম এবং বৃক্ষের মাঝামাঝি আকারের হয়, যা দুই থেকে নয় মিটার পর্যন্ত উঁচু হতে পারে।

অ্যাসকরবিক অ্যাসিডের ৪.৬ মিলিগ্রাম

অড়বড়ইয়ের রস ভিনেগার তৈরিতে ব্যবহার করা হয়। গাছের কচিপাতা ভারত, ইন্দোনেশিয়া ও থাইল্যান্ডে শাক হিসেবে রান্না করে খাওয়া হয়। অকাল বার্ধক্য রোধে ও ত্বকের রোগ প্রতিরোধে অড়বড়ইয়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। অড়বড়ইয়ের রস চুলের গোড়ায় লাগালে চুল মজবুত হয় ও খুশকি দূর হয়। মৌসুমি জ্বর প্রতিরোধে ও মুখের রুচি ফিরিয়ে আনতে ফলটি সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

 

 

 

অনলাইনে বীজ কোথায় পাওয়া যায়ঃ

দোকানের পাশাপাশি এখন অনলাইনে বীজ কিনতে পারবেন। কিনতে নিচে বীজ লেখা লিঙ্কের উপর ক্লিক করুনঃ

 

বীজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *